সংবাদ কণ্ঠ - সাহিত্যে নোবেল পেলেন ফরাসি লেখক প্যাত্রিক মোদিয়ানো
জুয়েলারী জগতে আলোচনার কেদ্রবিন্দুতে “ডায়মন্ড সিটি” কেবিন ক্রূ/ ফ্লাইট স্টুয়ার্ড নেবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স (ছেলেমেয়ে উভয়ই) বিনা অভিজ্ঞতায় “কেবিন ক্রু” পদে লোক নিবে নভো এয়ারলাইন্স, যোগ্যতা HSC, আবেদন করতে পারবে ছেলে মেয়ে উভয়ই। অচেনা নায়ক ! Unseen Hero !! কেবিন ক্রু নিয়োগ দেবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ,যোগ্যতা উচ্চ মাধ্যমিক ,আবেদন করতে পারবে ছেলে মেয়ে উভয়ই বিনা অভিজ্ঞতায় “কেবিন ক্রু” পদে চাকরি, যোগ্যতা HSC পাশ, বেতন ৮০০০০ টাকা ইউএস-বাংলার বহরে নতুন বোয়িং যুক্ত ‘চাকরির হতাশায়’ ঢাবি গ্রাজুয়েটের আত্মহত্যা ! নতুন ৫ টিভি চ্যানেলের অনুমোদন , মিডিয়াতে কর্মসংস্থানের ব্যাপক সুযোগ জবস এওয়ানের এক যুগ পূর্তি
ঢাকা, জুন ১৪, ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, স্থানীয় সময়: ০৯:৪৮:০৮


সাহিত্যে নোবেল পেলেন ফরাসি লেখক প্যাত্রিক মোদিয়ানো

| ২৪ আশ্বিন ১৪২১ | Thursday, October 9, 2014

Photo: সাহিত্যে নোবেল পেলেন ফরাসি লেখক প্যাত্রিক মোদিয়ানো ▬▬>> বিস্তারিত :: sangbadkantha.com/384  সাহিত্যে এ বছর নোবেল পেলেন ফরাসি লেখক প্যাত্রিক মোদিয়ানো। সুইডিশ অ্যাকাডেমি বৃহস্পতিবার সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী ১১১তম লেখক হিসাবে তার নাম ঘোষণা করে। ৬৯ বছর বয়সী মোদিয়ানো একাদশ ফরাসি সাহিত্যিক, যিনি এই পুরস্কার পেলেন। আগামী ১০ ডিসেম্বর স্টকহোমে আনুষ্ঠানিকভাবে মোদিয়ানোর হাতে পুরস্কার বাবদ তুলে দেওয়া হবে ৮০ লাখ ক্রোনার বা ১১ লাখ মার্কিন ডলার।  প্যাত্রিক মোদিয়ানো এ পর্যন্ত ৩০টি উপন্যাস লিখেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য >> বিস্তারিত :: sangbadkantha.com/384

সাহিত্যে এ বছর নোবেল পেলেন ফরাসি লেখক প্যাত্রিক মোদিয়ানো। সুইডিশ অ্যাকাডেমি বৃহস্পতিবার সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী ১১১তম লেখক হিসাবে তার নাম ঘোষণা করে। ৬৯ বছর বয়সী মোদিয়ানো একাদশ ফরাসি সাহিত্যিক, যিনি এই পুরস্কার পেলেন। আগামী ১০ ডিসেম্বর স্টকহোমে আনুষ্ঠানিকভাবে মোদিয়ানোর হাতে পুরস্কার বাবদ তুলে দেওয়া হবে ৮০ লাখ ক্রোনার বা ১১ লাখ মার্কিন ডলার।

প্যাত্রিক মোদিয়ানো এ পর্যন্ত ৩০টি উপন্যাস লিখেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য আ ট্রেস অব ম্যালিস, হানিমুন, মিসিং পারসন, লাকম্ব, লুসিয়েন ইত্যাদি। তাঁর লেখা উপন্যাস নিয়ে বেশ কিছু চলচ্চিত্রও তৈরি হয়েছে।

১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার মাত্র দুই মাসের মাথায় প্যারিসের পশ্চিমে এক শহরতলীতে জন্ম নেন মোদিয়ানো। তার ইহুদি বংশোদ্ভূত ইতালীয় বাবার সঙ্গে বেলজীয় অভিনেত্রী মায়ের যখন দেখা হয়েছিল, প্যারিস তখন হিটলারের নাৎসি বাহিনীর দখলে। সেইসব দিনের প্যারিস বার বার ফিরে এসেছে মোদিয়ানোর লেখায়। নাৎসি আগ্রাসন আর ইহুদিদের আত্মপরিচয়ের সঙ্কট তৈরি করে দিয়েছে তার অধিকাংশ উপন্যাসের পটভূমি।

কেবল উপন্যাস নয়, মোদিয়ানোর হাত দিয়ে শিশু সাহিত্য, এমনকি চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্যও বেরিয়েছে। তবে তার সবচেয়ে পরিচিত কাজ সম্ভবত ১৯৭৮ সালে প্রকাশিত ‘রুই দে বুটিক অবসকিউর’ (ইংরেজি অনুবাদের নাম মিসিং পারসন), যে উপন্যাসের জন্য তিনি সম্মানজনক ‘প্রি গুনকুয়া’ পুরস্কার জিতে নেন।

মোদিয়ানের বহু উপন্যাসের কাহিনী গড়ে উঠেছে তার শৈশবের প্যারিসে, তারই জীবনের টুকরো টুকরো অংশ নিয়ে কাহিনীর পরিণতির দিকে এগিয়েছে এক একটি চরিত্র।

কখনো কখনো তিনি উপন্যাসের মাল-মসলা সংগ্রহ করেছেন মানুষের সাক্ষাৎকার থেকে, পত্রিকার নিবন্ধ থেকে, কখনো কখনো নিজের ডায়েরিতে লেখা নোট থেকে, বছরের পর বছর ধরে যা তিনি লিখে চলেছেন। কখনো আবার তার একটি উপন্যাসের গল্প থেকেই জন্ম নিয়েছে আরেকটি উপন্যাস, এক কাহিনির চরিত্র অন্য কোনো উপন্যাসে হাজির হয়েছে ভিন্ন কোনো প্রেক্ষাপটে।

গত বছর সাহিত্যে নোবেল পান ছোটগল্পকার এলিস মুনরো।